ডাকঘর পাঠ

নেহাল মুহাম্মাদ

বইটা পড়তে পড়তে আমি কেমন অমল হয়ে গিয়েছিলাম। আমার স্বপ্ন-ভাবনা আর ইচ্ছেগুলোকেই যেন রবীন্দ্রনাথ অমলকে দিয়ে বলিয়েছেন।

ওর পণ্ডিত না হবার ইচ্ছেটা যেন আমার-ই। পুঁথি পড়তে পড়তে যে আমার কত কী দেখা এখনও বাকী রয়ে গেছে। আমি কোন এক বাক্সবন্দী হয়ে আছি। সেই অনুভবগুলো নতুন করে মাথাচাড়া দিচ্ছে।

দইওয়ালা, ডাক হরকরা, ফকির, ফুল কুড়োনি আর ভিক্ষুক সবাই-ই যেন আমাকে ডাকছে। আর আমিও তাদের সঙ্গ পাবার জন্যে কেমন প্রস্তুত হয়ে আছি। কিন্তু ও-ই যে পণ্ডিত হবার জ্বালায় যেতে পারছি নে।

আমি রাজার একটা চিঠির অপেক্ষায় আছি কতকাল ধরে। কবে আসবে। হয়ত আসবে। আসুক না। আমি অপেক্ষায় থাকব। আমিও একদিন হয়ত দইওয়ালা হব। ডাক হরকরা কিংবা ফকিরকে সঙ্গ দেব।
আমি কী হব। আমি কী হব। আমি জানি না।

আমি সুধাকে ভুলি নি! হয়ত আমিও সুধার মত হব। কিংবা আমার জন্যেও কেউ হয়ত বলবে, ‘ওকে বল যে, সুধা তোমাকে ভোলে নি’। কবে বলবে।

রবীন্দ্রনাথ তার ডাকঘর নাটক দিয়ে পাঠককে একটা ঘোরের মধ্যে নিয়ে যাবেন। আমরা পড়তে পড়তে হারিয়ে যাব।
হারিয়ে যাবার নেমন্তন্ন।

nehal

নেহাল মুহাম্মাদ

ছাত্র , ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের । তার আগে কওমি মাদ্রাসার পাঠ চুকিয়েছেন । নিজের পাঠক পরিচয়ে বেশি স্বস্তি পান ! দায়ে ঠেকলেই কেবল লিখতে বসেন !

সম্পাদক: আবু মুস্তাফিজ

৩/১৯, ব্লক-বি, হুমায়ুন রোড, মোহাম্মদপুর, ঢাকা